Shoilo Propat – শৈলপ্রপাত ঝর্ণা ভ্রমণ গাইড

শৈলপ্রপাত ঝর্ণা বান্দরবান জেলা শহর থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে বান্দরবান-থানচি রোডের পাশে অবস্থিত। এটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপূর্ব সৃষ্টি। সারাক্ষণ ঝর্ণার হিমশীতল পানি এখানে বয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে অতিপরিচিত ঝর্ণা গুলোর মধ্যে শৈলপ্রপাত অন্যতম। পর্যটন নগরী বান্দরবানের কাছে হওয়ায় সারা বছরই পর্যটক সমাগমে মুখরিত থাকে স্বচ্ছ ও ঠান্ডা পানির এই ঝর্ণাটি।এই ঝর্ণার পানিগুলো খুবই স্বচ্ছ। বর্ষাকালে এ ঝর্ণার দৃশ্য দেখা গেলেও ঝর্ণাতে নামা বেশ কঠিন। বছরের বেশিরভাগ সময় দেশী বিদেশী পর্যটকে ভরপুর থাকে। রাস্তার পাশেই শৈল প্রপাত এর অবস্থান হওয়ায় এখানে পর্যটকদের ভিড় বেশি দেখা যায়। এখানে দুর্গম পাহাড়ের কোল ঘেঁষা আদিবাসী বম সমপ্রদায়ের সংগ্রামী জীবন প্রত্যক্ষ করা যায়।

শৈলপ্রপাত গেলে বম উপজাতীয়দের জীবনধারা চোখে পড়বেই। বমদের হাতে বোনা চাদর, মাফলার, বেডশিট, বেত ও বাঁশের তৈরি বিভিন্ন তৈজসপত্র স্মারক হিসাবে কিনে নিতে পারেন। এছাড়া বমদের উৎপাদিত বিভিন্ন মৌসুমী ফলমূলের স্বাদ চেখে দেখতে পারেন অনায়াসেই।

শৈলপ্রপাত ঝর্ণা ভ্রমণ গাইড

বাংলাদেশের যে কোন ঝর্ণার আসল সৌন্দর্য দেখার সবচেয়ে আদর্শ সময় হচ্ছে বর্ষা মৌসুম।বর্ষাকালেই ঝর্ণা পূরো যৌবন লাভ করে। অবশ্য শৈলপ্রপাত ঝর্ণা বছরের একেক সময় একেক সৌন্দর্য্য মেলে ধরে। তাই বর্ষাকাল ছাড়া অন্য সময়ে বান্দরবান গেলে শৈলপ্রপাতকে উপেক্ষা করা উচিত হবে না। তাছাড়া শৈলপ্রপাতকে উদ্দেশ্য করে আলাদা ভাবে বান্দরবানে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। কারণ বান্দরবানের অন্যতম দর্শনীয় স্থান চিম্বুক বা নীলগিরি যাওয়ার পথে শৈলপ্রপাতের সামনে দিয়েই যেতে হয়। কাজেই সবচেয়ে ভালো হয় নীলগিরি বা চিম্বুক পাহাড় দেখতে যাবার সময় ভাড়া করা গাড়ি রাস্তার পাশে থামিয়ে শৈলপ্রপাত দেখে নেওয়া। আর যদি শুধুই শৈলপ্রপাত দেখতে চান তাহলে সেটাও করতে পারেন।

যাওয়ার উপায়ঃ

প্রথমে আপনাকে বান্দরবান শহরে যেতে হবে। ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন বান্দরবানের উদ্দেশ্যে কয়েকটি পরিবহন কোম্পানির গাড়ি ছেড়ে যায়। যেমন শ্যামলি, হানিফ, ইউনিক, এস আলম, ডলফিন- এর যেকোনো একটি বাসে চড়ে আপনি বান্দরবানের যেতে পারেন। রাত ১০ টায় অথবা সাড়ে ১১টার দিকে কলাবাগান, সায়েদাবাদ বা ফকিরাপুল থেকে এসব বাস বান্দরবানের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। নন এসি বাসে জন প্রতি ভাড়া ৫৫০ টাকা। এসি ৯৫০ টাকা।  ঢাকা থেকে বাসে বান্দরবান যেতে সময় লাগে ৮-১০ ঘন্টা।

চট্টগ্রাম থেকে বান্দরবান যেতে পারেন। চট্টগ্রামের বদ্দারহাট থেকে পূবালী ও পূর্বানী নামের দুটি বাস বান্দরবনে আসা যাওয়া করে। এ দুটি বাসে জনপ্রতি ভাড়া ১২০ টাকা। চট্রগ্রামের ধামপাড়া বাস স্ট্যান্ড থেকে ২০০-৩০০ টাকা বাস ভাড়ায় বান্দরবান আসা যায়। এসব বাসে জনপ্রতি ২২০টাকা ভাড়া রাখা হয়।

বান্দরবান শহর থেকে টেক্সি, চাঁদের গাড়ি কিংবা প্রাইভেট কার বা জীপ ভাড়া করে শৈলপ্রপাত এ যাওয়া যায়। শহর থেকে জীপ গাড়ীতে ৬০০-৭০০ টাকা এবং চাঁদের গাড়ীতে ৪৫০-৫০০ টাকা লাগবে। যদিও শৈলপ্রপাতকে উদ্দেশ্য করে আলাদা ভাবে এখানে যাবার প্রয়োজন নেই। কারন আপনি যখন চিম্বুক বা নীলগিরি যাবেন, পথেই শৈ্লপ্রপাত পড়বে। কাজেই ভাড়া করা গাড়ী রাস্তার পাশে থামিয়েই  বেড়াতে পারেন।

 

কোথায় থাকবেনঃ

বান্দরবানে অসংখ্য রিসোর্ট, হোটেল, মোটল এবং রেস্টহাউজ রয়েছে। যেখানে ৬০০ থেকে ৩ হাজার টাকায় রাত্রিযাপন করতে পারবেন।

হলিডে ইন রিসোর্ট : মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্সের বিপরীতে ছোট্ট পাহাড়ের চূড়ায় হলিডে ইন রিসোর্ট। এখানে ছোটছোট অনেকগুলো কটেজ রয়েছে। ফোন-০৩৬১-৬২৮৯৬।

হিলসাইড রিসোর্ট : বান্দরবান-চিম্বুক সড়কের ৫ কিলোমিটার নামকস্থানে অবস্থিত মিলনছড়ি। এখানে রয়েছে উন্নত পরিবেশে রাত্রি যাপনের সু-ব্যাবস্থা। মোবাইল-১৫৫৬৫৩৯০২২।

হোটেল ফোর স্টার : বান্দরবান শহরে অবস্থিত হোটেল ফোরস্টার। এখানে এসি এবং নন এসি দু রকমের রুম রয়েছে। হোটেলের প্রতিটি কক্ষে রয়েছে টেলিভিশন। ফোন-০৩৬১-৬২৪৬৬।

হোটেল থ্রী স্টার: এটি বান্দরবান বাস স্টপের পাশে অবস্থিত। নীলগিরির গাড়ী এই হোটেলের সামনে থেকে ছাড়া হয়। এটি ৮/১০ জন থাকতে পারে ৪ বেডের এমন একটি ফ্ল্যাট। প্রতি নন এসি ফ্ল্যাট-২৫০০ টাকা, এসি-৩০০০ টাকা। বুকিং ফোন: থ্রী স্টার এবং ফোর ষ্টার হোটেল মালিক একজন, মানিক চৌধুরী-০১৫৫৩৪২১০৮৯ / ০১৮১৩২৭৮৭৩১।

হোটেল রিভার ভিউ : জেলা শহরের মধ্যে সাঙ্গু নদীর পাশ্ববর্তী প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে উঠেছে হোটেল রিভার ভিউ। এখানে নিজস্ব রেস্টুরেন্টও রয়েছে। ফোন-০৩৬১-৬২৭০৭।

আপনি চাইলে নীলাচল স্কেপ রিসোর্টে থাকতে পারেন। নীলাচল স্কেপ রিসোর্টে তিনটি কটেজে ছয়টি কক্ষ আছে। প্রতিটি কক্ষের ভাড়া ৩ হাজার টাকা। এছাড়া রিসোর্টের অতিথিদের জন্য ভালো মানের খাবারের ব্যবস্থা করে থাকেন কর্তৃপক্ষ। যোগাযোগঃ ০১৭৭৭৭৬৫৭৮৯।

হোটেল ভাড়া নীলাচল স্কেপ রিসোর্টঃ ৩০০০ টাকা

পর্যটন মোটেলঃ ৭৫০ হইতে ২০০০টাকা পর্যন্ত।

হোটেল ফোর স্টারঃ সিঙ্গেল-৩০০ টাকা, ডাবল- ৬০০, এসি-১২০০ টাকা।

হোটেল থ্রী স্টার : নন এসি ফ্ল্যাট-২৫০০ টাকা, এসি-৩০০০ টাকা।

হোটেল প্লাজা বান্দরবান: সিঙ্গেল-৪০০ টাকা, ডাবল- ৮৫০, এসি-১২০০ টাকা।

এছাড়াও মেঘলা পর্যটন কেন্দ্রে রয়েছে জেলা প্রশাসনের একটি সুন্দর রেস্ট হাউজ রয়েছে। যেখানে অবকাশ ভোগ করা যায় ভালভাবে। এখানে রাত্রিযাপনের জন্য চারটি কক্ষ রয়েছে। প্রতি কক্ষ ২৫০০/- (প্রতিদিন)।যে কেউ বুকিংয়ের জন্য ফোন করতে পারেন- ০৩৬১-৬২৭৪১ ও ০৩৬১-৬২৭৪২ নম্বরে।

কোথায় খাবেনঃ

বান্দরবানের কাছে হওয়ায় বান্দরবান শহরেই খাওয়া দাওয়া করতে পারবেন। পর্যটকদের খাবার জন্য বান্দরবান শহরে মাঝারি মানের বেশ কিছু হোটেল রয়েছে। সেগুলো থেকে নিজের পছন্দ মত হোটেলে তিন বেলার খাবার খেয়ে নিতে পারেন। তার মধ্যে তাজিং ডং ক্যাফে, মেঘদূত ক্যাফে, ফুড প্লেস রেস্টুরেন্ট, রুপসী বাংলা রেস্টুরেন্ট, রী সং সং, কলাপাতা রেস্টুরেন্ট ইত্যাদি। এছাড়া শৈল প্রপাত ঝর্ণার সামনেই স্থানীয় নানা মৌসুমী ফল নিয়ে আদিবাসী মানুষজনের দোকান আছে। সেখানে অল্প দামে এইসব বিষমুক্ত তাজা ফল খেয়ে দেখতে পারেন।

শৈলপ্রপাত ঝর্ণা ও আশেপাশের দর্শনীয় স্থানঃ
১।চিম্বুক পর্যটন কেন্দ্র
২।নীলগিরি
৩।নীলাচল
৪।মেঘলা পর্যটন কেন্দ্র
৫।স্বর্ণমন্দির
৬।বগালেক
৭।সাইরু হিল রিসোর্ট

ভ্রমণ টিপস ও সতর্কতাঃ

১।শৈল প্রপাতের নিচে হাঁটার সময় সতর্ক থাকুন, অনেক পিচ্ছিল পাথুরে পথ। একটু অসাবধানতার জন্যে দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

২।গাড়ি ঠিক করার ক্ষেত্রে দরদাম করে নিন, তেমনি হোটেল রুম ভাড়া করার সময়েও।

৩।সিজনে ছুটির দিনে গেলে আগে থেকে হোটেল বুকিং দিয়ে রাখতে পারেন।

৪।বিভিন্ন রেস্তোরায় স্থানীয় আদিবাসীদের খাবার পাওয়া যায়, স্বাদ নিতে পারেন।

৫।বর্ষায় ঝর্ণায় অনেক পানি, থাকে গোসলে সতর্ক থাকুন।

৬।কম খরচে বান্দরবান ঘুরতে চাইলে অফসিজন বা ছুটির দিন ব্যাতিত অন্যদিন ভ্রমণ করুন।

৭।পাহাড়ি পথে ভ্রমণের সময় সতর্ক থাকুন।

৮।পর্যটন স্পট গুলোর পরিবেশের ক্ষতি এমন এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন।

৯।ময়লা আবর্জনা, চিপসের প্যাকেট, পলিথিন এইসব নিদৃষ্ট স্থানে ফেলুন।


শৈলপ্রপাত ঝর্ণা,নীলগিরি,বান্দরবান ভ্রমণ খরচ,একদিনে বান্দরবান ভ্রমণ,চিম্বুক পাহাড়,বান্দরবান ভ্রমণের উপযুক্ত সময়,বান্দরবান কক্সবাজার ভ্রমণ,নীলাচল,বান্দরবান দর্শনীয় স্থান,birbangla.com,

 

 

 

Leave a Comment

You cannot copy content of this page